কোনো টাকা ছাড়া কি কি ব্যবসা শুরু করা যাবে – (পুঁজি ছাড়া ব্যবসা)

টাকা না লাগিয়ে টাকা ছাড়া কি কি ব্যবসা শুরু করা যায় (Zero investment business ideas) টাকা বিনিয়োগ না করেই ব্যবসা করার কিছু আইডিয়া নিয়ে আজকের এই আর্টিকেলটি লিখা হয়েছে। আপনি যদি কোনো টাকা ছাড়া ব্যবসা শুরু করার কথা ভাবছেন, তাহলে এরকম প্রচুর ব্যবসার ধারণা (business ideas) গুলো অবশই রয়েছে।   

কোনো টাকা ছাড়া ব্যবসা
ইনভেস্টমেন্ট ছাড়া বিজনেস শুরু করুন

বর্তমান সময়ে  মানুষ অধিক টাকা কামাতে চান। দিনে দিনে মানুষের চাহিদা এবং খরচ বাড়ার সাথে সাথে অধিক টাকার প্রয়োজনীয়তাও বেড়েই যাচ্ছে। 

এক্ষেত্রে অনেকেই নিজের কিছু ব্যবসা শুরু করার কথা ভাবে যাতে অধিক টাকার চাহিদা পূরণ করা যেতে পারে।

কিন্তু যেকোনো ব্যবসা শুরু করার জন্য প্রচুর অর্থের বা বিনিয়োগের (investment) প্রয়োজন হয়ে থাকে।

মানুষ ব্যবসা করার কথা চিন্তা করলেও পর্যাপ্ত পরিমাণে টাকা না থাকার ফলে এগোতে পারেনা।

যদিও আজকাল অনেক ব্যাংক থেকে লোন নেওয়ার সুবিধা রয়েছে কিন্তু এগুলো নেওয়ার অনেক রকম শর্ত এবং নিয়ম থাকে যেগুলো শুনে অনেকেই পিছিয়ে যান।

মনে অনেক রকম প্রশ্ন চলে আসে ঋণ সময় মতো শোধ করতে পারবো কি না যদি না পারি তাহলে অনকে ইন্টারেস্ট জমে যাবে ইত্যাদি বিভিন্ন প্রশ্নের ফলে মানুষ সাহস পায়না।

তাই, আজকে আমি এই আর্টিকেলে এমন কিছু ব্যবসার ব্যাপারে আপনাদের বলতে যাচ্ছি যেগুলো আপনারা কোনো টাকা ইনভেস্ট না করেই শুরু করতে পারেন এবং এর থেকে ভালো টাকা মুনাফা (profit) পেতে পারেন।

এখন আপনার মনে হয়তো প্রশ্ন আসছে যে কোনো টাকা ইনভেস্ট না করে ব্যবসা করা কি সম্ভব ?

তবে আমি আপনাদের বলতে চাই এমন অনেক ব্যবসা আছে যেগুলো কোনো টাকা ছাড়াই আপনারা শুরু করতে পারেন।

এর জন্য আপনার যা প্রয়োজন তা হলো নিজের মধ্যে কিছু বিশেষ স্কিল (skills) থাকা যার দাড়া আপনারা বিনা পুঁজিতে ব্যবসা শুরু করতে পারবেন।

নীচে প্রত্যেকটি ব্যবসার বিষয়ে আমরা বিস্তারিতভাবে আলোচনা করতে যাচ্ছি।

কোনো টাকা ছাড়া ব্যবসা শুরু করার কিছু আইডিয়া

আমি ওপরে যা বললাম, পুঁজি না লাগিয়ে ব্যবসা শুরু করার ক্ষেত্রে আপনাদের মধ্যে কিছু বিশেষ দক্ষতা (skills) অবশই থাকতে হবে।

কেননা, টাকা ছাড়া যেগুলো ব্যবসা শুরু করা যাবে সেগুলোর মধ্যে প্রায় প্রত্যেকটি আপনার skills, passion এবং interest এর ওপরে অধিকতা নির্ভর করছে।

আপনি কোন জিনিস গুলোতে এক্সপার্ট (expert) কোন বিষয়ে আপনার অধিক জ্ঞান বা অভিজ্ঞতা রয়েছে সেগুলোকে কাজে লাগিয়ে আপনাকে ইনকামের রাস্তা খুঁজতে হবে।

এভাবেই নিজের জ্ঞান, দক্ষতা এবং অভিজ্ঞতা গুলোকে কাজে লাগিয়ে পুঁজি ছাড়া ব্যবসা শুরু করতে পারবেন।

আর তাই বর্তমান সময়ের কয়েকটি সেরা এবং অধিক লাভজনক প্রফেশনাল ব্যবসার বিষয়ে আমি নিচে বলে দিচ্ছি যেগুলোকে কোনো টাকা ছাড়া শুরু করা যাবে।

১. Tuition business

আপনারা টিউশন ক্লাস শুরু করে মাসে ভালো টাকা উপার্জন করতে পারেন।

এই ব্যবসা শুরু করার জন্য আপনার কোনো টাকার প্রয়োজন হয়না শুধু পড়ানোর স্কিল থাকা জরুরি এবং যেই subject গুলো পড়াবেন সেগুলোর বিষয়ে সঠিক জ্ঞান থাকা দরকার।

আপনি যদি ভালো পড়াতে পারেন ছাত্র ছাত্রীরা শিক্ষা গ্রহণের ক্ষেত্রে আপনার কাছে আসবেই।

এই ব্যবসাটি আপনারা ঘরে বসেই শুরু করতে পারেন। 

কিন্তু বর্তমান পরিস্থিতির জন্য অনেকেই সেন্টারে বা ঘরে  গিয়ে পড়তে চান না।

তাই এক্ষেত্রে আপনি অনলাইন টিউশন ক্লাস শুরু করাতে পারেন।

কোনোরকম টাকা ইনভেস্ট না করে টাকা কামানোর খুব সহজ একটি বিকল্প হলো এই tuition business.

এই ব্যবসাটি শুরু করার আগে আপনার ঘরের সামনে টিউশন ক্লাসের একটি সাইন বোর্ড লাগিয়ে দিতে হবে যাতে লোকেরা আপনার সাথে কন্টাক্ট করতে পারে।

২. Content writing business

বর্তমান সময়ে কনটেন্ট লিখার ব্যবসাটি অনেক বেশি লাভদায়ক ব্যবসার মধ্যে ধরা হচ্ছে।

এই ব্যবসাটি শুরু করার জন্য কোনোরকম টাকার প্রয়োজন হয়না।

তবে একটি smartphone বা computer এর প্রয়োজন হবে আর্টিকেল লিখার জন্য।

আপনার মধ্যে যদি লিখার প্রতিভা থাকে এবং নিজের কিছু ব্যবসা করার ইচ্ছা থাকে তাহলে এই ব্যবসাটি আপনার জন্য খুবই লাভদায়ক ব্যবসা হবে।

আজকাল অনেক মানুষ থাকে যাদের নিজের ব্লগ বা নিউজ ওয়েবসাইট থাকে যেখানে অনেক ধরণের কনটেন্ট তৈরি করতে হয়।

এক্ষেত্রে আর্টিকেল লিখানোর জন্য তাদের কিছু writer এর প্রয়োজন হয়ে থাকে যাতে তাদের blog বা online platform এর জন্য content / article নিয়মিত ভাবে তৈরি হতে থাকে। 

তাই, আপনি এই ধরণের blog বা website এর মালিকের সাথে যোগাযোগ করে তাদের জন্য আর্টিকেল লিখে টাকা ইনকাম করতে পারবেন।

অনেকেই আজ ঘরে বসে বসে content writing এর ব্যবসা শুরু করে টাকা ইনকাম করছেন।

এই কাজটি আপনারা ঘরে বসেই শুরু করতে পারেন এবং এর জন্য আপনার কোথাও গিয়ে কাজ করার প্রয়োজন হয়না, আপনি আর্টিকেল লিখে সেটা mail করে দিলেই আপনার কাজ হয়ে যাবে।

বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই, আর্টিকেল লিখার জন্য আপনি পার ওয়ার্ড (PPW) হিসাবে টাকা দেওয়া হয়। 

অধিক টাকা ইনকাম করার জন্য আপনি একাধিক blog / website এর জন্য content লিখুন।

এছাড়া যদি চাকরির পাশাপাশি পার্ট-টাইম ব্যবসার কথা ভাবছেন, তাহলে এই ব্যবসার আইডিয়াটি কিন্তু খারাপ না।

৩. Yoga business

বর্তমান সময়ে সকলেই নিজের স্বাস্থ্য নিয়ে সচেতন থাকেন।

এর জন্য অনেকে অনেক টাকা খরচ অবশই করছেন।

এই সুযোগটি কাজে লাগিয়ে আপনারও যোগা শিখানোর ক্লাস খুলতে পারেন। 

কিন্ত এর জন্য আপনাকে প্রথম নিজে ফিট থাকতে হবে এবং যোগার বিষয়ে ভালো করে জ্ঞান নিয়ে নিতে হবে। 

প্রথমে আপনি আসে পাসের দশ পনেরো জন মানুষ নিয়ে শুরু করতে পারেন এবং প্রতিদিন এক ঘন্টার ক্লাস দিতে পারেন।

এর জন্য প্রত্যেক ব্যাক্তি থেকে মাসে ৫০০ থেকে ৬০০ টাকা fees চার্জ করতে পারবেন।

আপনারা বাড়ির ছাদে বা কারো যদি ঘরে বড় হল রুম থাকে সেখানেও যোগা ক্লাস শুরু করতে পারবেন।

প্রতিদিন এক ঘন্টা ক্লাস করিয়ে কোনো টাকা খরচ না করেই মাসে ৫০০ টাকা করে হলেও পনেরো জনের থেকে 7500 টাকা আপনি আয় করতে পারছেন। 

৪. Real estate business

Real estate ব্যবসাটি হোলো কোনো সম্পপ্তি, বাড়ি, জায়গায় কেও যদি ইনভেস্ট করতে চায় বা বিক্রি করতে চায় তার খবর করিয়ে দেওয়া।

আর যেকোনো জায়গা, ঘর, দোকান, জমি কেনা-বেচার ক্ষেত্রে গ্রাহক খুঁজে মধ্যস্বত্বভোগী হিসেবে কাজ করা ব্যক্তিটিকে বলা হয় রিয়াল ইস্টেট ব্রোকার।

বর্তমান সময়ে এই ব্যবসাটি করে মানুষ ভালো টাকা কমিশন হিসাবে কামাচ্ছে।

এই ব্যবসাটি শুরু করার জন্য আপনার একটাকাও এখানে বিনিয়োগের দরকার পড়বেনা শুধু আপনার সময় খরচ করতে হবে এবং মার্কেটে ঘুরে ঘুরে বিভিন্ন প্রোপার্টির গুলোর খোঁজ খবর রাখতে হবে। 

উদাহরণস্বরূপ,

কোনো ব্যক্তি যদি ব্রোকারের সাহায্য নিয়ে নিজের মাটি বিক্রি করতে চায় তাহলে ব্রোকারের কাজ হবে মাটি বিক্রি করানোর জন্য গ্রাহক খুঁজে সেটাকে বিক্রি করানো। 

এবং মাটি বিক্রি করানোর বিপরীতে ব্রোকার বা একজন মধ্যস্বত্বভোগী কমিশন হিসাবে ভালো পরিমানে টাকা পেয়ে যাবে। 

কিন্ত এই ব্যবসা করার সময় আপনাকে অনেক ব্যাপারে সতর্ক থাকতে হবে যাতে মাটির কাগজপত্র সঠিক থাকে এবং কোনোরকম ঝামেলা না হয়। 

কোনো টাকা খরচ না করে এই ব্যবসা থেকে ভালো টাকা উপার্জন করতে পারবেন এবং এই ব্যবসাটি long term হিসাবে শুরু করতে পারেন।

৫. ড্রাইভিং ক্লাস ব্যবসা

আজকাল বেশিরভাগ মানুষ গাড়ি চালানো শিখতে চান এবং ড্রাইভিং ক্লাস খুজে থাকেন যেখানে ভালো করে গাড়ি চালানো শিখানো হয়।

আপনারা যদি কোনো রকম টাকা ইনভেস্ট না করে ব্যবসা শুরু করতে চান তাহলে গাড়ি চালানোর ক্লাস শুরু করতে পারেন এতে কোনো রকম টাকার বিনিয়োগ করতে হয়না।

কিন্তু এর জন্য আপনাকে ভালো করে গাড়ি চালানো জানতে হবে যাতে অন্যদের শিখাতে পারেন।

এই ব্যবসাটি পার্ট টাইম হিসাবে করতে পারেন এবং ১০, ১৫ দিনের ক্লাস দিয়ে প্রতিজনের থেকে তিন থেকে পাঁচ হাজার টাকা পর্যন্ত ফিস নিতে পারবেন।

এর জন্য আপনি সকালের সময় টুকু বা বিকালের সময়টুকু কাজে লাগাতে পারেন এবং বাকি সময় অন্য কাজ করতে পারেন।

ব্যবসাটি করে আপনি মাসে ভালো টাকা এক্সট্রা উপার্জন করতে পারেন।

গাড়ি চালানো শিখানোর জন্য আপনার কাছে গাড়ি থাকলে ভালো হয়, তবে যদি গাড়ি না থাকে তাহলেও কোনো কথা নেই আপনার কাছে যারা শিখতে আসবেন তাদের গাড়ি দিয়েও শিখাতে পারেন।

৬. Event management business

ইভেন্ট ম্যানেজমেন্ট ব্যবসা যারা করে থাকেন তাদের কাজ হলো যেকোনো ইভেন্ট হলে তার পুরো প্ল্যান বানিয়ে ইভেন্টের সব দায়িত্ব নিয়ে কাজ করা।

আজকাল অনেক মানুষ থাকে যারা ব্যস্ততার কারণে কোনো অনুষ্ঠান করার জন্য টাকার বিপরীতে event management এর লোকের উপর সব দায়িত্ব দিয়ে রাখে।

এর ফলে উনাদের কিছুতে মাথা লাগাতে হয়না এবং সব কাজ event management এর লোকেরা দেখে থাকে।

এই ব্যবসা শুরু করার জন্য আপনাকে কোনোরকম টাকা খরচ করতে হয়না শুধু event management এর বিষয়ে প্ল্যানিং স্কিলস থাকা আবশ্যক।

আপনারা বিভিন্ন ধরণের ইভেন্টের কাজ নিতে পারেন যেমন অফিস ইভেন্ট, জন্মদিনের ইভেন্ট, কোনো ধর্মীয় অনুষ্ঠান ইত্যাদি ইভেন্টের পুরো প্ল্যান করে কাজ করে নিজের হিসাব অনুযায়ী টাকা নিতে পারেন।

এমনিতে বর্তমান সময়ে event management সেবার অনেক চাহিদা রয়েছে।

৭. Walls painting business

এই ব্যবসাটি শুরু করার জন্য আপনাকে creative এবং ধর্যশীল হতে হবে, কারণ আপনি যখন কোনো painting এর কাজ করবেন তখন তাড়াতাড়ি করে শেষ করে দিলে কাজটি সুন্দর হয়না তাই ধর্য্য নিয়ে আগ্রহের সাথে কাজটি সম্পূর্ণ করতে হয়।

আজকাল অনেকেই ঘরের দেওয়ালে বা রেস্টুরেন্ট, কফি শপ, রাস্তার দেওয়াল ইত্যাদি গুলোকে আকর্ষক করার জন্য wall paintings করিয়ে থাকে।

এক্ষেত্রে ক্লায়েন্ট এর বলা ডিজাইন হিসাবে দেওয়ালে পেইন্টিংস করা হয়।

উদাহরণস্বরূপ, বাচ্চাদের ক্লাসে কার্টুন এর ফুলের ছবি, গিটার ভালো পাওয়া ব্যক্তির রুমে গিটার এর পেইন্টিং ইত্যাদি 

আপনারও  যদি দেওয়ালে পেইন্টিং করার অভিজ্ঞতা থাকে তাহলে কোনো টাকা না লাগিয়ে এই ব্যবসা শুরু করতে পারেন এবং দেওয়ালে সুন্দর সুন্দর ডিজাইন পেইন্ট করে square feet হিসাবে টাকা চার্জ করে ভালো উপার্জন করতে পারেন।

৮. Affiliate marketing business

আজকাল affiliate মার্কেটিং ব্যবসার অনেক প্রচলন রয়েছে।

অনলাইনে প্রচুর টাকা আয় করার সেরা এবং সব থেকে লাভজনক উপায় affiliate marketing.

এই ব্যবসা শুরু করার জন্য আপনাকে এক টাকাও খরচ করতে হবেনা।

আজকাল, মানুষ অনলাইন জিনিস কিনতে বেশি পছন্দ করে থাকে।

Amazon, Flipkart ইত্যাদির মতোই হাজার হাজার e-commerce কোম্পানি গুলো রয়েছে যেগুলোর একটি affiliate program রয়েছে। 

আপনাকে কোনো অনলাইন ই-কমার্স ওয়েবসাইটে গিয়ে তাদের affiliate program join করতে হবে এবং নিজের হিসাবে প্রোডাক্ট বেছে নিতে হবে।

এবার বেছে নেওয়া সেই প্রোডাক্টের একটি বিশেষ লিংক তৈরি করে প্রোডাক্ট গুলো নিজের কোনো অনলাইন প্ল্যাটফর্মে promote করতে হয়।

যখন কোনো customer আপনার share করা লিঙ্ক ব্যবহার করে কোনো প্রোডাক্ট কিনবেন তখন সেই প্রোডাক্ট এর বিক্রির থেকে কমিশন হিসাবে আপনাকে টাকা দেওয়া হবে।

এই ব্যবসা শুরু করার জন্য কোনো টাকা লাগেনা শুধু সময় দিতে হয়।

ঘরে বসেই এই ব্যবসা শুরু করতে পারেন এবং মাসে ভালো টাকা কামাতে পারেন।

৯. Second hand car business

পুরানো গাড়ি কেনা বেচার ব্যবসা শুরু করে আপনারা ভালো টাকা কমিশন হিসাবে কামাতে পারেন।

বর্তমান সময়ে মানুষ পুরানা গাড়ি বিক্রি করে নতুন গাড়ি কিনে থাকে বা অনেক মানুষ থাকে যারা নতুন গাড়ি কিনতে ইচ্ছা রাখলেও টাকার অভাবের জন্য পুরানো গাড়ি কিনে থাকে।

কাজের মধ্যে সময় বের করে customer খুজা সম্ভব হয়ে উঠেনা যার জন্যে অনেকেই এমন মানুষ খুজে থাকেন যারা সেকেন্ড হ্যান্ড গাড়ি বিক্রি করার কাজ করে থাকে এবং তাদের গাড়ি উচিত দামে বিক্রি করতে সাহায্য করে থাকে।

এবং গাড়ি বিক্রি হওয়া পর কিছু টাকা কমিশন হিসাবে দিয়ে দেওয়া হয়।

এই ব্যবসা শুরু করার জন্য আপনাকে একটাকাও নিবেশ করতে হয়না, তবে শুধু গাড়ির বিষয়ে সঠিক জ্ঞান থাকাটা দরকার।

এছাড়া, সময় খরচ করে মার্কেটে গাড়ির সঠিক দাম, গ্রাহক কোথায় পাওয়া যাবে এগুলোর বিষয়ে খবর রাখা দরকার।

১০. ব্লগিং ব্যবসা (Blogging business)

আজকাল online professional business বলতে blogging business কিন্তু অনেক চর্চাতে রয়েছে।

কেননা, blogging করে লোকেরা মাসে লক্ষ লক্ষ টাকা পর্যন্ত আয় করতে পারছেন।

আপনি নিজের ঘরে থেকে বা যেকোনো জায়গার থেকে ব্লগিং এর কাজ করতে পারবেন এবং কোনো টাকা বিনিয়োগ আপনাকে করতে হবেনা।

শুরুতে আপনি blogger.com এর মাধ্যমে একটি free blog বানিয়ে সবটা ফ্রীতে শুরু করতে পারবেন।

ধীরে ধীরে কিছুটা টাকা ইনকাম হওয়া শুরু হলে তখন premium hosting, domain বা অন্যান্য tools গুলো কিনতে পারবেন।

আজ আমি নিজেই ব্লগিং ব্যবসাটি করছি এবং ভালো পরিমানের টাকা ঘরে বসেই আয় করতে পারছি।

 

Conclusion

তাহলে বন্ধুরা আজকের এই আর্টিকেলের মাধ্যমে আমরা এমন অনেক ব্যবসার বেপারে জানতে পারলাম যেগুলো কোনো রকম টাকা খরচ না করেই শুধু নিজের স্কিলস এবং ইন্টারেস্ট ব্যবহার করে শুরু করতে পারবো এবং ভালো পরিমানে টাকা উপার্জন করতে পারেন।

তাই কোনো টাকা ছাড়া ব্যবসা (Zero investment business ideas in Bangla) শুরু করতে চাইলে ওপরে দেওয়া ব্যবসার আইডিয়া গুলো আপনাদের অনেক কাজে আসবে।

পুঁজি ছাড়া কি কি ব্যবসা করা যাবে, এনিয়ে লিখা আমাদের আজকের আর্টিকলে যদি আপনাদের পছন্দ হয়ে থাকে,

তাহলে আর্টিকেলটি শেয়ার অবশই করবেন।

এছাড়া, আর্টিকেলের সাথে জড়িত কোনো ধরণের প্রশ্ন বা পরামর্শ থাকলে নিচে কমেন্ট করে অবশই জানিয়ে দিবেন।

 

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error:
Scroll to Top
Copy link