ব্লগ (blog) কি ? অনলাইন ব্লগ থেকে কিভাবে টাকা আয় করা যায়

ব্লগ কি ? ব্লগ থেকে আয় কিভাবে করবো
ব্লগ তৈরি করে টাকা আয় করুন।

বন্ধুরা, আজকের আর্টিকেলে আমরা মূলত ব্লগিং (blogging) নিয়ে চর্চা করতে চলেছি।

আজকে আমরা, “ব্লগ মানে কি(what is blog in Bengali), “একটি ব্লগ থেকে কিভাবে আয় করা যায়” এবং “কিভাবে ব্লগিং শুরু করবো“, এই সম্পূর্ণ বিষয়ে A to Z জানবো।

ব্লগ কি (what is blogging in Bengali), এই বিষয়ে আজ student থেকে retired প্রত্যেকেই জেনেনিতে চাচ্ছেন।

কারণ, বর্তমানে ঘরে বসে অনলাইনে ইনকাম করার সব থেকে লাভজনক উপায় হিসেবে ব্লগিং (blogging) অনেক জনপ্রিয়তা লাভ করেছে।

বেশিরভাগ ক্ষেত্রে, একজন চাকরিজীবী ব্যক্তি তার সম্পূর্ণ জীবনকালে কষ্ট করার পরেও মাসে ৩০ হাজার টাকার মাইনে (salary) পায়না।

কিন্তু যদি আপনি সঠিক ভাবে ব্লগিং এর বিষয়টিকে বুঝে এই কাজ শুরু করতে পারেন,

তাহলে কেবল প্রায় ১ বছর কষ্ট করার পর আপনার জন্যে কমেও প্রত্যেক মাসে ৫০ হাজার থেকে ১ লক্ষ টাকা আয় করার সুযোগ হয়ে দাঁড়াতে পারে।

হে, ব্লগ তৈরি করে আয় করাটা প্রচুর লাভজনক। সফল ব্লগাররা প্রত্যেক মাসে লক্ষ লক্ষ টাকা ইনকাম করছেন।

আমি এমনিতেই এই কথা গুলো বলছিনা।

অনলাইনে ব্লগ থেকে ইনকাম করার বিষয়টি কিন্তু লুকিয়ে নেই।

এবং, বিশ্বজুড়ে হাজার হাজার ব্যক্তিরা ব্লগিংকে নিজের ক্যারিয়ার হিসেবে নিয়ে প্রফেশনালি ব্লগিং করে অনলাইন টাকা ইনকাম করছেন।

তবে আবার বলছি, blogging এর career এর মধ্যে সফলতা পাওয়ার জন্যে, আপনাকে সঠিক ভাবে ধর্য্য ধরে কাজ করতে হবে।

যদি আপনারা, কম সময়ে টাকা ইনকাম করার লোভে কোনো shortcut নিয়ম ব্যবহার করার ভুল করেন,

তাহলে অনেকেরি মতোই আপনার ব্লগিং ক্যারিয়ার শুরু হওয়ার আগেই শেষ হয়ে যাবে।

যদি আপনি ব্লগিং এর বিষয়টিতে একেবারেই নতুন, তাহলে প্রথমেই জেনেনিতে হবে “ব্লগ কাকে বলে” (What Is a Blog).

এরপর, ব্লগ বলতে কি বুঝায় বিষয়টা ভালো করে বুঝে নেয়ার পর, ব্লগ থেকে কিভাবে আয় করা যায়, সেই কনসেপ্ট (concept) আপনার বুঝে নিতে হবে।

নিচে আমি, “blog কি” এবং “ব্লগিং করে টাকা আয় কিভাবে করবেন“, দুটো বিষয়েই বলে দিয়েছি।

ব্লগ (Blog) কি ? (What is Blog in Bengali) 

যদি আমি নিজের ভাষাতে বলি তাহলে, ব্লগ বা ওয়েব লগ (web log) হলো একটি অনলাইন পার্সোনাল ডায়েরির মতোই।

এই অনলাইন ডায়েরিতে আপনি আপনার নিজের মনের কথা, জ্ঞান, অভিজ্ঞতা, ভালো-মন্দ ইত্যাদি টেক্সট কনটেন্ট/আর্টিকেল হিসেবে লিখে অনলাইনে শেয়ার করতে পারেন।

টেক্সট এর সাথে সাথে আপনি আপনার ব্লগে (অনলাইন ডায়েরি), ইমেজ, ভিডিও, গ্রাফিক্স ইত্যাদি যোগ করতে পারবেন।

যিহেতু আপনি আপনার কনটেন্ট গুলোকে অনলাইনে ইন্টারনেটের মাধ্যমে পাব্লিক্যালি পাবলিশ করছেন,

তাই, অন্যান্য ইন্টারনেট ব্যবহারকারীরা আপনার ব্লগ বা ব্লগের কনটেন্ট গুলোকে ইন্টারনেটের মাধ্যমে এক্সেস করতে পারেন।

এক্ষেত্রে, বিভিন্ন search engine (Google, Yahoo, Bing etc.) বা সোজা আপনার ব্লগের domain name এর মাধ্যমে আপনার ব্লগ টিকে ইন্টারনেটে খুঁজে পাওয়া সম্ভব।

তবে, আমার হিসেবে ব্লগ মানে একটি অনলাইন ডায়েরি হলেও, টেকনিক্যালি ব্লগ এর যেটা পরিভাষা রয়েছে, সেটা আলাদা।

Technically বললে,  ব্লগ মানে হলো একটি ওয়েবসাইট (Website) যেটাতে নিয়মিত ভাবে কনটেন্ট (text, image, videos) গুলোকে পাবলিশ / আপডেট করা হয়।

আবার অনেকেই, ব্লগ বলতে information এর একটি online source বলেও বুঝেন যেখানে বিভিন্ন বিষয়ে তথ্য রয়েছে।

একটি ব্লগ এর মাধ্যমে সাধারণ লোকেদেরকে সঠিক তথ্য প্রদান করার কাজ করা হয় এবং যেকোনো একটি বিশেষ বিষয়ে online comunity তৈরি করা হয়।

তাই, Blog হলো একটি এমন discussion বা informational website যেটাকে World Wide Web (WWW) এর মধ্যে ছাড়া হয় এবং যেখানে আপনি আপনার রুচি (interest) হিসেবে নিয়মিত কনটেন্ট পাবলিশ করবেন।

আপনি যেকোনো বিষয়ে ব্লগ তৈরি করতে পারবেন।

যেমন,

  • Stories 
  • Lyrics 
  • Status 
  • Information 
  • How to 
  • Lifestyle 

মূলত, আপনি যেই বিষয়ে রুচি রাখেন এবং যেই বিষয়ে আপনার ভালো knowledge রয়েছে, সেই বিষয় নিয়েই একটি ব্লগ তৈরি করতে পারবেন।

তাহলে আশা করছি, ব্লগ বলতে কি বুঝায়, (about blogging in Bengali) বিষয়টা ভালো করে বুঝতেই পেরেছেন।

ব্লগিং করে কত টাকা আয় করা যায় ? 

ব্লগিং করে কত টাকা আয় করা যায়, এই প্রশ্নের উত্তর হিসেবে আমি কেবল কিছু নির্ধারিত আয়ের সংখ্যা বলতে পারবোনা।

কারণ, যখন ব্লগিং থেকে আয় করার কথা চলে আসে, তখন সেই আয়ের সংখ্যা প্রত্যেকের ক্ষেত্রেই আলাদা আলাদা হতে পারে।

আপনি আপনার ব্লগ থেকে কত টাকা ইনকাম করতে পারবেন, সেটা বিভিন্ন জিনিসের ওপরে নির্ভর করে থাকে।

যেমন, 

  • আপনার ব্লগে গুগল সার্চ ইঞ্জিন থেকে কত ট্রাফিক / ভিসিটর্স প্রত্যেক দিন চলে আসছে ?
  • আপনি ব্লগ থেকে ইনকাম করার জন্যে কোন উপায় গুলো ব্যবহার করছেন ?
  • যদি গুগল এডসেন্স ব্যবহার করে ইনকাম করছেন, তাহলে প্রত্যেক click এর জন্যে কত করে CPC পাচ্ছেন ?
  • ব্লগে দেখানো বিজ্ঞাপন (ads) গুলোতে কত বেশি clicks হচ্ছে ?

এরকম অনেক ব্লগার রয়েছেন যারা নিজের ব্লগ থেকে প্রত্যেক মাসে প্রায় ১-৫ লক্ষ বা তার থেকেও অধিক ইনকাম করছেন।

আবার, এরকম অনেক ব্লগাররা রয়েছেন যারা নিজের ব্লগ থেকে প্রত্যেক মাসে প্রায় ১০ থেকে ৩০ হাজারের মধ্যেও টাকা আয় করছেন।

এভাবেই, অনেকেই এখনো চেষ্টা চলিয়ে যাচ্ছেন ব্লগ থেকে কিছুটা ইনকাম করার

তাই, সোজা ভাবে বললে ব্লগ থেকে আপনি কত টাকা আয় করতে পারবেন তার কোনো নির্ধারিত সংখ্যা নেই।

এর সাথেই, ব্লগ থেকে কত ইনকাম হতে পারে তার কোনো সীমাবদ্ধতাও নেই। এখানে, ইনকামের সুযোগ প্রচুর রয়েছে।

আপনি প্রত্যেক মাসে লক্ষ লক্ষ টাকা ব্লগিং করে ইনকাম করতে পারবেন।

তবে, এই সম্পূর্ণটা নির্ভর করছে আপনার ব্লগে কত বেশি সার্চ ইঞ্জিন ট্রাফিক / ভিসিটর্স আসছে এবং টাকা ইনকাম এর উদ্দেশ্যে আপনি কোন মাধ্যম ব্যবহার করছেন।

যদি আপনি Google adsense ব্যবহার করে ব্লগ থেকে ইনকাম করার কথা ভাবছেন,

তাহলে আমার অভিজ্ঞতা হিসেবে,

  • প্রত্যেকদিন যদি আপনার ব্লগে গুগল সার্চ থেকে ১০০০ ভিসিটর্স আসছে, তাহলে প্রায় $3 থেকে $8 এর ভেতরে প্রত্যেক দিন ইনকাম হতে লাগে।
  • প্রত্যেকদিন যদি আপনার ব্লগে গুগল সার্চ থেকে ২৫০০-৩০০০ ভিসিটর্স আসছে, তাহলে প্রায় $10 থেকে $20 এর ভেতরে প্রত্যেক দিন ইনকাম হতে লাগে।

এভাবেই, যত বেশি Google organic search traffic নিজের ব্লগে নিয়ে আসতে পারবেন, ততটাই অধিক ইনকাম আপনি ব্লগ থেকে করতে পারবেন।

ব্লগ থেকে ইনকাম করতে কত সময় লাগবে ? 

যখন প্রশ্ন আসছে যে, ব্লগিং করে টাকা আয় করতে কত সময় লাগতে পারে তখন এর উত্তর প্রত্যেকের ক্ষেত্রেই আলাদা আলাদা।

মনে রাখবেন, ব্লগ থেকে আয় করার জন্যে সবচেয়ে আগেই আপনার ব্লগে প্রচুর গুগল সার্চ ইঞ্জিন ট্রাফিক আসতে হবে।

সার্চ ইঞ্জিন থেকে যত বেশি ট্রাফিক আপনার ব্লগে চলে আসবে ততটাই বেশি ইনকাম আপনি ব্লগ থেকে করতে পারবেন।

আর, নিজের ব্লগে সার্চ ইঞ্জিন থেকে প্রচুর traffic / visitors নিয়ে আসার উপায় হলো একটাই,

“নিয়মিত নিজের ব্লগে high quality content / article publish করা”

যে যত নিয়মিত ভাবে (প্রায় দুদিন পর পর) ব্লগে কনটেন্ট পাবলিশ করবেন,

ততটাই তাড়াতাড়ি কনটেন্ট গুলো search engine গুলোতে index এবং rank হতে থাকবে।

ফলে, আপনার ব্লগে ততটাই তাড়াতাড়ি traffic আসতে শুরু করবে সার্চ ইঞ্জিন থেকে।

আর একবার traffic আসতে শুরু হলেই আপনি আপনার ব্লগ থেকে ইনকাম করার প্রক্রিয়াও চালু করতে পারবেন।

যদি আপনি নিয়মিত নিজের ব্লগে content / article পাবলিশ করছেন,

তাহলে প্রায় ৫ থেকে ৬ মাসের মধ্যেই ভালো পরিমানের traffic আপনার ব্লগে আসতে শুরু হবে।

আর তাই, প্রায় ৬ থেকে ১০ মাসের মধ্যে আপনি আপনার ব্লগ থেকে টাকা আয় করার জন্যে ভাবতে পারবেন।

আমি যখন আমার প্রথম বাংলা ব্লগ আরম্ভ করি, তখন আমি নিয়মিত আর্টিকেল পাবলিশ করতাম।

এবং, প্রায় ৫ থেকে ৬ মাসের মধ্যেই আমি Google AdSense এর মাধ্যমে নিজের ব্লগে বিজ্ঞাপন দেখিয়ে টাকা আয় করতে শুরু করি।

সময়ে সময়ে আমার ব্লগে search engine traffic বাড়তে থাকলো এবং সেভাবেই income এর সংখ্যাও বাড়লো।

কিভাবে ব্লগিং শুরু করবো ? 

বন্ধুরা, যখন কথা আসবে ব্লগিং শুরু করার তখন আপনাকে কিছু steps follow করে ব্লগিং শুরু করতে হবে।

ব্লগ (blog) কি, সেটাতো আপনারা বুঝতেই পেরেছেন।

তাই, যদি টাকা আয় করার উদ্দেশ্যে professionally blogging শুরু করতে চাইছেন,

তাহলে নিচে বলা হিসেবে এগিয়ে যেতে হবে।

১. Select a blogging niche / category

যদি আপনি একটি ব্লগ সাইট তৈরি করার সিদ্ধান্ত নিয়েই নিয়েছেন,

তাহলে সবচেয়ে প্রথমে আপনাকে একটি বিষয় এর বাছাই করতে হবে।

এমন একটি বিষয় যেটার বিষয়ে আপনি বিভিন্ন আর্টিকেল লিখে নিজের ব্লগে পাবলিশ করতে পারবেন।

মানে, ব্লগ তৈরি করে যাতে আপনি আপনার রুচি, জ্ঞান, অভিজ্ঞতার হিসেবে সেখানে আর্টিকেল লিখে পাবলিশ করতে পারেন,

তার জন্যে, knowledge থাকা একটি blogging topic আপনার সিলেক্ট করতে হবে।

যেভাবে, আপনি technology এবং online income এর বিষয়টি নিয়ে এই blog তৈরি করেছি।

২. Buy a domain name

এবার আপনাকে একটি ডোমেইন নাম কিনে নিতে হবে নিজের ব্লগ সাইট এর জন্যে।

যেরকম আমার ব্লগের ডোমেইন নাম হলো “onlinejano.info“, ঠিক সেভাবেই আপনার ব্লগ সাইট এর একটি ভালো এবং ইউনিক ডোমেইন নাম কিনে নিতে হবে।

Domain name এর মাধ্যমে আপনার blog site টিকে access / visit করা যাবে।

যেভাবে আমার এবং আপনার নাম হলো আমাদের পরিচয়,

ঠিক সেভাবেই, আপনার blog site এর domain name হলো তাদের পরিচয়।

ইউসাররা সোজা আপনার domain name এর মাধ্যমেই আপনার ব্লগে ভিসিট করতে পারবেন।

আপনি যেকোনো একটি top level domain extension কিনে নিতে পারেন, যেমন – “.com”, “.info”, “.org”, “.net” ইত্যাদি।

প্রায় ৫০০ টাকার ভেতরে আপনারা একটি ভালো domain name কিনে নিতে পারবেন।

একটি unique domain name নিজের ব্লগের জন্য select করে কিনে নেওয়ার পর, সেটাকে নিজের blog site / hosting server এর সাথে সংযুক্ত করতে হবে।

৩. Buy Hosting Server

একটি ব্লগ তৈরি করার জন্য বিভিন্ন free platform যেমন Google এর তরফ থেকে থাকা Blogger.com ইত্যাদি অবশই রয়েছে।

তবে, যদি আপনি টাকা আয় করার উদ্দেশ্যে professional ভাবে ব্লগিং করার কথা ভাবছেন,

তাহলে আমি কখনোই free platform গুলো ব্যবহার করার পরামর্শ আপনাকে দিবোনা।

কেননা, free platform গুলোতে আপনার ব্লগ এর ওপরে আপনার সম্পূর্ণ অধিকার বা নিয়ন্ত্রণ থাকেনা।

তাই, ব্লগিং করার জন্যে অবশই একটি ভালো hosting company থেকে hosting কেনার পরামর্শ আমি দিবো।

Digitalocean, cloudways, namecheap ইত্যাদি কোম্পানি গুলোর থেকে high quality এবং secure hosting space নিজের ব্লগ সাইট এর জন্যে কিনে নিতে পারবেন।

নিজের hosting server এর মধ্যে WordPress CMS install করে আপনারা সম্পূর্ণ নিজের একটি ব্লগ সাইট বানাতে পারবেন।

এক্ষেত্রে, আপনার তৈরি করা blog এর ওপরে আপনি ছাড়া অন্য কেও নিয়ন্ত্রণ বা অধিকার রাখতে পারবেনা।

 ৪. Create & design your blog site

একটি domain name এবং hosting server কেনার পর আপনাকে দুটোকেই পরস্পরে সংযুক্ত (connect) করতে হবে।

আপনি YouTube এর মধ্যে বিভিন্ন tutorials দেখে, নিজের hosting server এর সাথে domain name সংযুক্ত করতে পারবেন।

এই কাজ হয়ে যাওয়ার পর, আপনাকে নিজের hosting server এর মধ্যে WordPress CMS install করতে হবে।

WordPress install হয়ে যাওয়ার পর আপনাকে একটি clean এবং simple design এর সাথে নিজের ব্লগ তৈরি করতে হবে।

তবে, এটা সম্পূর্ণ আপনার ওপরেই থাকছে আপনি কিভাবে নিজের blog টিকে design করতে চাচ্ছেন।

  • Blog এর design অনেক clean এবং simple রাখার চেষ্টা করুন।
  • নিজের সাইটে কিছু জরুরি পেজ যেমন, “privacy policy“, “contact us“, “about us” ইত্যাদি যোগ করুন।
  • যদি আপনি আপনার ব্লগে বিভিন্ন আলাদা আলাদা বিষয়ে আর্টিকেল পাবলিশ করার কথা ভাবছেন, তাহলে আলাদা আলাদা বিষয়ের কনটেন্ট এর জন্য আলাদা আলাদা ক্যাটাগরি অবশই তৈরি করুন।
  • Visitors দের জন্যে email subscription করার একটি option রাখুন।
  • নিজের ব্লগের সাথে জড়িত social media pages গুলোকে ব্লগের মধ্যে display করুন।

৫. Publish articles regularly

এখন আপনার কাছে একটাই জরুরি কাজ রয়ে যাবে, যেটা হলো “ভালো ভালো বিষয় গুলো নিয়ে আর্টিকেল লিখা এবং ব্লগে পাবলিশ করা“.

যদি আপনি ব্লগিং এর মাধ্যমে তাড়াতাড়ি সফলতা চাচ্ছেন,

তাহলে নিয়মিত প্রায় প্রত্যেক দিন বা প্রত্যেক দুদিনের মধ্যে একটি করে quality article publish করতেই হবে।

যত বেশি আর্টিকেল আপনি রেগুলার ব্লগে পাবলিশ করবেন, ততটাই তাড়াতাড়ি ব্লগে ট্রাফিক / ভিসিটর্স আসার সুযোগ হয়ে উঠবে।

তাছাড়া, মনে রাখবেন যাতে অন্যের লিখা আর্টিকেল গুলোকে কপি / চুরি করে নিজের ব্লগে পাবলিশ করবেননা।

এতে, আপনার লাভ কিছুই হবেনা তবে আপনার ব্লগিং ক্যারিয়ার শুরু হওয়ার আগেই নষ্ট হয়ে যাবে।

আপনাকে সেই প্রত্যেক বিষয় গুলো নিয়ে detailed article লিখা উচিত যেগুলো লোকেদের কাজে আসতে পারে।

৬. On page SEO জানাটা জরুরি

বর্তমানে ব্লগিং এর লাইনে অনেক বেশি competition হয়ে গেছে যার ফলে সফলতা পাওয়াটা এক্ষেত্রে অনেক কষ্ট।

তাই, আপনি কেবল ভালো ভালো আর্টিকেল লিখলেই কাজ হবেনা।

আপনাকে, SEO (search engine optimization) নিয়ে অবশই ভালো জ্ঞান রাখতে হবে।

SEO হলো এমন এক প্রক্রিয়া যার মাধ্যমে আপনি নিজের blog এবং blog content / articles গুলোকে search engine গুলোর জন্যে optimize করতে পারবেন।

এতে, Google এর মতো search engine গুলো আপনার content গুলোকে অধিক ভালো করে বুঝতে পারে,

এবং, আপনার blog বা blog content গুলো সার্চ ইঞ্জিন গুলোতে ভালো র্যাংকিং (ranking) পাওয়ার সুযোগ হয়ে দাঁড়ায়।

আর সার্চ ইঞ্জিন গুলোতে আর্টিকেল পেজ গুলো ভালো র্যাংকিং (ranking) পাওয়া মানেই হচ্ছে আপনার ব্লগে আসবে অধিক traffic / visitors.

তাই, blogging শুরু করার আগেই On-page SEO এবং Off-page SEO এর বিষয়ে সম্পূর্ণটা জেনে রাখুন।

৭. Add website to Google search

রেগুলার কিছু দিন নিজের ব্লগে SEO optimized articles পাবলিশ করার পর, এখন আপনাকে একটি জরুরি কাজ করতে হবে।

দেখুন, আপনার blog site এর মধ্যে unlimited free traffic পাওয়ার একটাই কার্যকর উপায় রয়েছে।

সেটা হলো, Google search engine থেকে।

অবশই, অন্যান্য search engine গুলো যেমন Yahoo বা Bing থেকেও কিছু traffic পাবেন।

তবে, গুগল এর তুলনায় অন্যান্য সার্চ ইঞ্জিন গুলোর থেকে অনেক কম ভিসিটর্স পাবেন।

তাই, প্রথমেই আপনাকে নিজের blog site এর domain name টিকে Google search engine এর মধ্যে জমা দিতে হবে।

আর, যেকোনো ওয়েবসাইট Google search engine এর index এর মধ্যে জমা দেওয়ার জন্যে আপনার ব্যবহার করতে হবে,

Google search console“.

৮. Apply for Google AdSense

যখন আপনার ব্লগে ভালো পরিমানে articles পাবলিশ করা থাকবে এবং সেই ব্লগ গুগলে জমা দেওয়া হবে,

তারপর আপনার ব্লগ এর আর্টিকেল পেজ গুলো গুগল সার্চের database এর মধ্যে ধীরে ধীরে index হতে থাকবে।

এরপর যখন, লোকেদের সার্চ করা বিভিন্ন keywords / search query গুলোর জন্যে আপনার আর্টিকেল পেজ গুলোকে SERP (search engine result page) এর মধ্যে দেখানো হবে,

তখন আপনার ব্লগে নিয়মিত ভাবে গুগল সার্চ থেকে ট্রাফিক আসতে শুরু হবে।

আর তাই, যখন ব্লগে ভালো পরিমানে traffic আসা শুরু হবে, তখন আপনি Google AdSense এর জন্যে apply করতে পারবেন।

Adsense হলো Google এর একটি service যার মাধ্যমে bloggers রা নিজের ব্লগে বিজ্ঞাপন দেখিয়ে টাকা আয় করতে পারেন।

বর্তমানে, ব্লগ থেকে টাকা ইনকাম করার সব থেকে লাভজনক ও জনপ্রিয় মাধ্যম এটাই।

৯. Earn money from blogging

যখন একবার Google AdSense এর team আপনার blog site টিকে verify করে approve করে দিবে,

তখন আপনি আপনার ব্লগে Google দ্বারা কিছু বিজ্ঞাপন দেখিয়ে টাকা আয় করতে পারবেন।

একটি ব্লগে Google AdSense এর বিজ্ঞাপন দেখিয়ে আপনি মাসে লক্ষ লক্ষ টাকা পর্যন্ত ইনকাম করতে পারবেন।

তবে সেগুলো সম্পূর্ণ নির্ভর করছে কিছু বিষয়ের ওপরে।

যেমন,

  • আপনার ব্লগে যত বেশি গুগল সার্চ থেকে ট্রাফিক আসবে ততটাই বেশি ইনকাম হবে এডসেন্স থেকে।
  • ব্লগে দেখানো বিজ্ঞাপন গুলোতে কত বেশি user রা click করছেন। যত বেশি click ততটাই বেশি ইনকাম।
  • এডসেন্সের মাধ্যমে দেখানো আলাদা আলাদা বিজ্ঞাপনে আলাদা আলাদা পরিমানে CPC দেওয়া হয়। CPC (cost per click), মানে হলো বিজ্ঞাপনে হওয়া প্রত্যেকটি single click এর জন্য কত টাকা আপনাকে দেওয়া হচ্ছে। তাই,অধিক CPC থাকলে কম website traffic এবং কম clicks এর ফলেও অধিক ইনকাম সম্ভব।

তাহলে বুঝলেন তো, কিভাবে ব্লগিং শুরু করবেন এবং ব্লগিং করে টাকা আয় কিভাবে করা সম্ভব ?

এমনিতে, একটি ব্লগে যদি ভালো পরিমানে traffic আসছে, তাহলে অন্যান্য কিছু মাধ্যম ব্যবহার করেও টাকা ইনকাম করা সম্ভব।

ব্লগিং করে টাকা আয় করার অন্যান্য কিছু উপায় 

যদি আপনার ব্লগে প্রত্যেক দিন কমেও প্রায় ১৫০০ থেকে ২০০০ unique visitors আসছে,

তাহলে আপনারা Google AdSense ছাড়াও অন্যান্য কিছু মাধ্যম ব্যবহার করে নিজের blog থেকে online income করতে পারবেন।

যেমন, 

  • Affiliate marketing – অনলাইন ইন্টারনেটে সক্রিয় অন্যান্য কোম্পানি গুলোর products / services গুলোকে affiliate link এর দ্বারা নিজের ব্লগে পাবলিশ করে তারপর বিক্রি করিয়ে কমিশন ইনকাম করতে পারবেন।
  • Direct product promotion – আপনারা যেকোনো company গুলোর product এবং services এর direct marketing / advertisement নিজের ব্লগে করে ইনকাম করতে পারবেন।
  • E-book selling – আপনারা নিজের তৈরি করা e-book এর marketing selling করে ইনকাম করতে পারবেন।
  • Paid guest post – অন্যান্য  নতুন blogger দের backlink দেওয়ার ক্ষেত্রে টাকার বিনিময়ে guest posting করতে দিতে পারেন।
  • Advertisement company – Google AdSense ছাড়াও প্রায় অনেক advertisement company গুলো রয়েছে যেগুলোর দ্বারা নিজের ব্লগে বিজ্ঞাপন দেখিয়ে টাকা আয় করা সম্ভব।

করা একটি ব্লগ তৈরি করে টাকা আয় করতে পারবেন ? 

যখন কথা আসছে একটি ব্লগ তৈরি করে টাকা ইনকাম করার, তখন এই সুযোগ প্রত্যেক লোকেদের কাছেই রয়েছে।

যদি কোনো ব্যক্তির কাছে extra free time এর সাথে blogging এর প্রতি interest রয়েছে,

তাহলে সেই ব্যক্তি blogging শুরু করতে পারবেন।

যদি আপনি computer এবং ইন্টারনেট এর ব্যবহার জানেন, তাহলে ব্লগিং অবশই করতে পারবেন।

আজ ইন্টারনেট থাকার ফলে আমরা যেকোনো বিষয়ে অনেক সহজেই তথ্য সংগ্রহ করে নিতে পারি।

তাই, blogging এর বিষয়েও সম্পূর্ণ তথ্য জেকেও Google search বা YouTube এর মাধ্যমে জেনেনিতে পারবেন।

একজন student, housewife, retired person, চাকরি করা ব্যক্তি ইত্যাদি প্রত্যেকেই ব্লগিং করতে পারবেন।

 

আমাদের শেষ কথা,,

তাহলে বন্ধুরা, “ব্লগ মানে কি” (what is blog in bengali) এবং অনলাইনে কিভাবে ব্লগ থেকে আয় করা যাবে এই সম্পূর্ণ বিষয়ে আমরা জানলাম।

আমি নিজেও একজন professional blogger যে full-time blogging এর সাথে জড়িত।

আর তাই, আমি বলতে পারছি যে ব্লগিং যদি সঠিক ভাবে করতে পারেন, তাহলে এই ব্লগিং এর ফলে আপনি আপনার জীবন পাল্টে নিতে পারবেন।

আপনি blog এর মাধ্যমে অনলাইনে নিজের knowledge, experience ইত্যাদি শেয়ার করার সাথে সাথেই,

নিজের শেয়ার করা knowledge এর ফলেই টাকা ইনকাম করতে পারছেন ব্লগিং এর মাধ্যমে।

যদি আমাদের আজকের এই আর্টিকেল “what is blogging in Bengali” আপনাদের ভালো লেগে থাকে,

তাহলে অবশই আর্টিকেলটি শেয়ার করবেন।

তাছাড়া, আর্টিকেলের সাথে জড়িত কোনো ধরণের প্রশ্ন বা পরামর্শ থাকলে, আমাকে নিচে কমেন্ট করে অবশই জানিয়ে দিবেন।

 

2 thoughts on “ব্লগ (blog) কি ? অনলাইন ব্লগ থেকে কিভাবে টাকা আয় করা যায়”

  1. এত সুন্দর আর্টিকেল এর জন্য আপনাকে ধন্যবাদ জানানোর ভাষা আমার নেই। ধন্যবাদ ভাই।

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error:
Scroll to Top
Copy link